চিকিৎসককে মারধরের অভিযোগে মুক্তাগাছা যুবলীগ সভাপতি গ্রেফতার | দৈনিক ময়মনসিংহ প্রতিদিন

Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on whatsapp

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত চিকিৎসককে মারধরের অভিযোগে উপজেলা যুবলীগ সভাপতি মাহবুবুল আলম মনিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (০৬জুলাই) রাত ২টার দিকে তার নিজ বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় বুধবার মনির সহযোগী আরো ৪জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকুতরা হলো-জাহিদুল ইসলাম জুয়েল, রানা দে, কামরুজ্জামান জামান ও রাকিবুল ইসলাম শরিফ।

এদিকে, এ হামলার ঘটনার সুষ্ঠ বিচার দাবীতে বুধবার সকাল ৯টা থেকে সকাল ১১টা পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করেছে হাসপাতালের চিকিৎসকরা। পরে সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ নজরুল ইসলাম, ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ পরীক্ষিত পাল ডাক্তাদের সাথে আলোচনা করে বিচারের আশ্বাসে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে কর্ম বিরতি শেষে তারা কাজে যোগদান করেন।

জানা যায়, মঙ্গলবার (০৬ জুলাই) দুপুর ২টার দিকে মুক্তাগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি সেবার নম্বরে কল করেন উপজেলা যুবলীগ সভাপতি মাহবুবুল আলম মনি। এ সময় তিনি তার মায়ের করোনা পরীক্ষার জন্য বাসায় গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করতে বললে, ডা. সালেকিন তাকে জানায় বাসায় গিয়ে নমুনা সংগ্রহ বন্ধ রয়েছে। তার মাকে হাসপাতালে নিয়ে এসে নমুনা জমা দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

এর কিছুক্ষণ পর মনি তার দলবল নিয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে মেডিকেল অফিসার ডা. এএইচএম সালেকিন মামুন এর কক্ষে ঢুকে দরজা বন্ধ করে গালিগালাজ ও মারধর করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মুক্তাগাছা থানার ওসি দুলাল আকন্দ বলেন, শারীরিক ভাবে লাঞ্চিত হওয়ার ঘটনায় ডা. সালেকিন বাদী হয়ে মঙ্গলবার (৬ জুলাই) রাতে মাহবুবুল আলম মনিকে আসামী করে মুক্তাগাছা থানায় মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় উপজেলা যুবলীগ সভাপতি মাহবুবুল আলম মনিসহ ৫জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে  এবং তাদেরকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

Explore More Districts